সোমবার, ০৩ মে ২০২১, ০৫:০৬ অপরাহ্ন

ডালিয়ার নৌ ভ্রমণ ও তিন বিঘা করিডর

পরিবার নিয়ে গিয়েছিলাম ডালিয়া তিস্তা ব্যারাজ দেখতে। উদ্দেশ্য ছিল নৌ-ভ্রমণ। লালমনিরহাট-নীলফামারী জেলার সীমান্ত পয়েন্টে দেশের বৃহত্তম সেচ প্রকল্প। নীলফামারীর ডিমলা উপজেলার সীমানা থেকে এক কিলোমিটার দূরে লালমনিরহাটের হাতীবান্ধা উপজেলার দোয়ানী নামক স্থানে তিস্তা নদীর ওপর এ ব্যারাজ। যা তৈরি হয়েছিল নদীভিত্তিক সেচের জন্য। কিন্তু ভারতের উজানে ব্যারাজ নির্মাণ করায় এবং বাংলাদেশে পানি না দেওয়ায় এই ব্যারাজের পরিকল্পনা পুরোপুরি সফল হয়নি। ব্যারাজটিতে ৫২টি গেট রয়েছে।

এ ব্যারাজের চারপাশে প্রকৃতির নিয়মে সৃষ্টি হয়েছে সবুজ বন আর পাখির আবাসভূমি। পর্যটনের সুবিধা না থাকার পরও তিস্তার পাশে সারা বছরই আসেন পর্যটকরা। তিস্তার পানি নিয়ন্ত্রণের জন্য উঁচু কন্ট্রোল টাওয়ার, সুইচ খালের পানি থেকে বালি উত্তোলনের সিলট্রাপ, নদীর ডানতীরে বাঁধের  উপর নির্মিত স্পার, দেখতে পর্যটকদের আগ্রহ যেন বেশি। সবকিছু মিলিয়ে সাজানো-গোছানো ডালিয়া তিস্তা ব্যারাজ।

নিউজটি শেয়ার করুন


      এ জাতীয় আরো খবর..